" " " "

ইয়া কাবিয়ু ইয়া মাতিনু অর্থ কি – ইয়া মাতিনু ইয়া কাবিয়ু এর ফজিলত

আসসালামু আলাইকুম , বন্ধুরা আল্লাহ তায়ালার কিন্তু অসংখ্য নাম রয়েছে। এরমধ্যে আমরা বিভিন্ন নামের অর্থ গুলো জানতে চাই। তো আপনি কি ইয়া কাবিয়ু অর্থ কি সেটা জানতে চান?

যদি জানতে চেয়ে থাকেন তাহলে আজকের পোস্ট শুধু মাত্র আপনার জন্য। আজকের পোস্ট যারা শেষ পর্যন্ত পড়বে সেই সকল পাঠকরা ইয়া কাবিয়ু অর্থ কি সাথে ইয়া কাবিয়ু ইয়া মাতিনু অর্থ কি সবকিছু জানতে পারবে।

যদিও বিভিন্ন বর্ণনায় পাওয়া যায় আল্লাহ তাআলার গুণবাচক নাম রয়েছে মোট ৯৯ টি। কিন্তু আরো অসংখ্য আল্লাহ তাআলার নাম রয়েছে। এই নামগুলোর প্রত্যেকটা আমাদের জানা অবশ্যই জরুরী। আর যদি আমরা নামগুলোর অর্থ সহ জেনে নিতে পারি তাহলে সেটা আমাদের জন্য আরো ভালো হয়।

তো এই কারণে আজকের পোস্টে আমরা আল্লাহ তাআলার গুরুত্বপূর্ণ দুইটি নাম ইয়া কাবিয়ু এবং ইয়া মাতিনু এই দুটো নামেরই অর্থ জানব। শুধুমাত্র ইয়া কাবিয়ু এবং ইয়া মাতিনু অর্থ কি সেটা জানবো না । এর পাশাপাশি আমরা ইয়া কাবিয়ু এর ফজিলত এবং ইয়া মাতিনু এর ফজিলত সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।

তাহলে চলুন বেশি কথা না বাড়িয়ে আমাদের আজকের মূল আলোচনা চলে যাই –

ইয়া মাতিনু অর্থ কি

বন্ধুরা যদিও আমরা প্রত্যেকটি নামের অর্থ এবং ফজিলত আপনাদের সাথে আলোচনা করব কিন্তু আমরা প্রথমে এই ইয়া মাতিনু অর্থ কি সেটা আপনাদেরকে বুঝিয়ে দেব।

আল্লাহ তাআলার প্রত্যেকটা গুনবাচক নামই অনেক গুরুত্বপূর্ণ এবং যে নাম ধরেই তাকে ডাকা হোক না কেন অবশ্যই আল্লাহ তায়ালা খুশি হন। কিন্তু আমরা যদি তার গুন বাচক নাম গুলোর অর্থ জানার পর সেগুলো আন্তরিকতার সাথে মন দিয়ে জপ করতে থাকি তাহলে আল্লাহ তায়ালা আরো বেশি খুশি হয়।

আল্লাহ তায়ালার এই গুণবাচক নাম গুলোর মধ্যে ইয়া মাতিনু নামটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ রয়েছে। অনেকেই এই নামটির অর্থ জানার জন্য গুগলে সার্চ করে থাকে যে ইয়া মাতিনু অর্থ কি ।

তাদের জন্য বলছি ইয়া মাতিনু নামটির অর্থ হচ্ছে হে মহা শক্তিশালী। অর্থাৎ আপনি যখন ইয়া মাতিনু নাম ধরে আল্লাহকে ডাকবেন তখন আপনি আল্লাহকে হে মহাশক্তিশালী বলে রাখতে চান ।

যেহেতু নামটির অর্থ অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ তাই বুঝতে পারছেন এই নামটি ধরে ডাকা আমাদের জন্য অনেক কল্যাণময়। আশা করি নামগুলোর অর্থ জানার পর এই নামগুলো ধরে আল্লাহকে ডাকতে আরো বেশি ইচ্ছা হবে ।

ইয়া মাতিনু এর ফজিলত

আপনারা যারা ইন্টারনেটে এই ইয়া মাতিনু অর্থ কি প্রশ্নটা করেছিলেন আশা করি উপরের লেখাটি পড়ে এ প্রশ্নটি সবার মন থেকে চলে গেছে। কিন্তু অনেক মানুষ আছে যারা এই আমাদের ইয়া মাতিনু এর ফজিলত সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চায়।

ইয়া মাতিনু নামটির অর্থ যেহেতু মহা শক্তিশালী । তাই যারা এটি বলে আল্লাহ তাআলার জিকির করবে তাদেরকে আল্লাহ তা’আলা অবশ্যই সবল করে দিবেন। তো এই ইয়া মাতিনু এর ফজিলত আরো অনেক বর্ণিত আছে যেগুলো নিচে আলোচনা করা হলো –

  • যে ব্যাক্তি এই ইয়া মাতিনু নামের জিকির নিয়মিত করবে ,তার প্রতি আল্লাহ তায়ালার অনেক রহমত ও বরকত লাভ করা হয়।
  • এই ইয়া মাতিনু নামের জিকির করলে আল্লাহ তায়ালা ওই ব্যক্তির শক্তি ও সাহস অনেক গুনে বৃদ্ধি করে দেয়।
  • যদি কেউ এই নামের জিকির করট থাকে এবং কোনো বিপদে পড়ে তাহলে সে সব ধরনের বিপদ ও বাধা থেকে মুক্তি পাবে ইনশাল্লাহ।

এগুলো ছাড়াও এই ইয়া মাতিনু নামের আরো অনেক ফজিলত আছে। এই ফযীলত গুলো লাভের জন্য অবশ্যই মন থেকে আল্লাহ তাআলার এই নামটি জপ করতে হবে।

যদিও আল্লাহ তাআলার যেকোন নাম যেকোনো সময় জিকির করা যায়। তবে আপনারা চাইলে প্রতিদিন ফজরের নামাজের পর এবং এশার নামাজের পর এই নামটি নিয়মিত তেলাওয়াত করতে পারেন । চাইলে তিনবার ,সাতবার , ১০০ বার বা এক হাজার বার যেকোনো সংখ্যায় নামটি আপনারা তেলাওয়াত করতে পারবেন।

তো বন্ধুরা এই নামটি পাট করার প্রচলন গুলো যদি আপনি সঠিকভাবে পেতে চান তাহলে অবশ্যই খালেস নিয়তে আল্লাহর কাছে দোয়া করবেন এবং তার ইবাদতগুলো যথাযথ ভাবে পালন করবেন।

ইয়া কাবিয়ু অর্থ কি

উপরে আপনারা ইয়া মাতিনু নামটি সম্পর্কে বেশ কিছু তথ্য জেনে এসেছেন। যদিও আল্লাহ তাআলার ৯৯টি গুণবাচক নামের মধ্যে প্রত্যেকটা নামেরই অসংখ্য ফজিলত রয়েছে এবং অনেক অর্থ রয়েছে।

তারপরও এই ইয়া কাবিয়ু ইয়া মাতিনু অর্থ কি সেটা মানুষ জানার জন্য অনেক আগ্রহ প্রকাশ করে থাকে। তারই ধারাবাহিকতায় পোষ্টের প্রথমে আমরা আপনাদেরকে ইয়া মাতিনু অর্থ কি এবং ইয়া মাতিনু এর ফজিলত সম্পর্কে বিস্তারিত বলে এসেছি। এই পর্যায়ে এখন আমরা আপনাদের সাথে এই ইয়া কাবিয়ু অর্থ কি সেটা নিয়ে আলোচনা করব।

ইয়া কাবিয়ু আল্লাহর নামটির অর্থ হচ্ছে সরল পথ প্রদর্শনকারী । অর্থাৎ যিনি মানুষকে সরল বা সোজা পথ দেখিয়ে থাকে তাকেই ইয়া কাবিয়ু বলা হয় । আপনি যখন ইয়া কাবিয়ু বলে ডাকবেন তখন আপনি আল্লাহকে হে সরল পথ প্রদর্শনকারী বলে ডাকতেছেন।

এই ইয়া কাবিয়ু নামের আরও একটি অর্থ রয়েছে। আর সেই অর্থটি হচ্ছে নিয়ন্ত্রণকারী। অর্থাৎ যিনি এই সৃষ্টিজগতের সবকিছুই নিয়ন্ত্রণ করে থাকে তাকেই নিয়ন্ত্রণকারী বলা হয়। আল্লাহ তাআলা যেহেতু সৃষ্টি জগতের প্রত্যেকটা বিষয় সুক্ষভাবে নিয়ন্ত্রণ করে থাকে এবং পরিচালনা করে থাকে এই কারণে তার নাম ইয়া কাবিয়ু।

আবার এই ইয়া কাবিয়ু এর অর্থ হে শক্তিশালী ও বিভিন্ন জায়গার উল্লেখ আছে। আল্লাহ তাআলার একটা নামের বিভিন্ন ধরনের অর্থ থাকতে পারে আবার বিভিন্ন অর্থ একটা নামের থাকতে পারে। এই কারণে নির্দিষ্ট করে এখানে কিছু বলা হচ্ছে না।

ইয়া কাবিয়ু এর ফযিলত

আমরা আগেও আপনাদেরকে বলেছি যে আল্লাহ তাআলার প্রতিটা নামেরই অসংখ্য ফজিলত আছে। এরমধ্যে ইয়া মাতিনু নাম টি সে ফজিলত পূর্ণ একইভাবে ইয়া কাবিয়ু নামটিও প্রায় একই ধরনের ফজিলতপূর্ণ।

তো অনেকেই আছে যারা এই ইয়া কাবিয়ু এর ফজিলত গুলো ভালোমতো বুঝতে চায় ।তাদের জন্য পোস্টে এখন আমরা এই পয়েন্টে সবাইকে বিষয়টি ভালোমতো বুঝিয়ে দেব ইনশাল্লাহ।

  • ইয়া কাবিয়ু নামটি প্রতিনিয়ত তেলাওয়াত করলে আল্লাহতালা তেলাওয়াত কারীর মধ্যে শক্তি বাড়িয়ে দেয় এবং তাকে অনেক সবল করে তোলে ।
  • যাদের সাহস অনেক কম এবং যারা অনেক ভয় পায় তারা চাইলে এই নামটি তেলাওয়াত করতে পারে তাহলে অবশ্যই তাদের মনের সাহস অনেক বেশি হবে এবং দৃঢ়তাও বেশ বৃদ্ধি পাবে ।
  • আল্লাহর এই গুণবাচক নামটি তেলাওয়াত করলে সুস্থতা লাভ করা যায় এবং বেশি বেশি আল্লাহর রহমত ও বরকত অর্জন করা যায়।
  • যদি নামটি আপনি সঠিকভাবে তেলাওয়াত করেন তাহলে ইনশাআল্লাহ আপনার শত্রুদের থেকেও আপনি রক্ষা পাবেন।
  • আল্লাহর এই গুণবাচক নাম টি আপনার পারিবারিক সমস্যা থেকেও মুক্তি দেবে ইনশাল্লাহ।
  • যদি আপনি আপনার জীবনে সফলতা লাভ করতে চান তাহলে অবশ্যই নামটি নিয়মিত জিকির করবেন।
  • যাদের জীবনে অনেক সমস্যা এবং আপনার জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে তারা যদি জীবনে সুখ এবং সমৃদ্ধি লাভ করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে এই ইয়া মাতিনু ও ইয়া কাবিয়ু নামটি নিয়মিত তেলাওয়াত করতে হবে।

যাইহোক আল্লাহ তায়ালার প্রতিটা নামই অসংখ্য এবং অগণিত ফজিলত রয়েছে। যেকোনো নামই তেলাওয়াত করেন না কেন আল্লাহ তালা অবশ্যই আপনার জীবনে সফলতা অর্জন করতে সাহায্য করবে এবং তার বরকত লাভ করতে পারবেন।

তবে আল্লাহ তা’আলার যত হাজার হাজার গুণ বাচক নাম রয়েছে তার মধ্যে আল্লাহ তাআলা সব থেকে খুশি হয় আল্লাহু আকবার বলে ডাক দিলে। যদি শুধুমাত্র আপনারা আল্লাহু আকবার বলে আল্লাহকে নিয়মিত ডাকতে পারেন তাহলেই আল্লাহ তা’আলা আপনাদের মনের আশা পূরণ করবেন ইনশাল্লাহ।

আল্লাহু আকবার মানে হচ্ছে আল্লাহ সর্বশক্তিমান অর্থাৎ আল্লাহ তায়ালাকে আপনি এই সৃষ্টি জগতের সবথেকে বড় মহান প্রভু এবং সৃষ্টিকর্তা বলে ডাকতেছেন।

পরিশেষে

যাই হোক আশা করব যারা ইয়া কাবিয়ু অর্থ কি , ইয়া কাবিয়ু ইয়া মাতিনু অর্থ কি এগুলো খুজতেছিলেন তারা সবগুলো প্রশ্নের সঠিক উত্তর হয়ে গেছে। এগুলো ছাড়াও আমরা এই পোস্টে আলোচনা করেছি ইয়া কাবিয়ু এর ফজিলত সহ ইয়া মাতিনু এর ফজিলত ও। আশা করি আমাদের আলোচনা করা প্রত্যেকটা বিষয় আপনারা খুব সহজ ভাবে বুঝতে পেরেছেন।

তবে আমাদের আলোচিত কোন বিষয়ে যদি আপনাদের বুঝতে সমস্যা হয় বা নতুন কোন প্রশ্ন আপনাদের মাথায় চলে আসে তাহলে নির্দ্বিধায় সেটা কমেন্ট করে আমাদেরকে জানাবেন।

তবে সব সময় মনে রাখবেন আল্লাহ তাআলা সর্বশক্তিমান , সবকিছুর সৃষ্টিকর এবং তিনি সবকিছু ক্ষমা করেন এবং যে কোন নামে ডাকলেই তিনি খুশি হন এবং বান্দার ডাকে সাড়া দেন। তাই আল্লাহতালাকে আপনার ইচ্ছামত যেকোনো নামে ডাকতে পারবেন কোন সমস্যা নেই। সবাই ভালো থাকবেন এবং আল্লাহ তাআলার পথে চলার চেষ্টা করবেন। আসসালামু আলাইকুম।

ভালো লাগতে পারে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button