" " " "

সেরা ৪ টি এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল এর দাম ও বিস্তারিত ২০২৩

প্রযুক্তির দুনিয়ায় আমরা দ্রুত অনেকে এগিয়ে যাচ্ছি । কিছুদিন আগেও যেখানে টাচ মোবাইল ছাড়া অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম কল্পনা করা যেতনা সেখানে বর্তমানে বাটন মোবাইলেই android অপারেটিং সিস্টেম চালানো যাচ্ছে। 

প্রযুক্তির ছোঁয়া পেয়ে আমরা অনেক আধুনিক হচ্ছি, কিন্তু এটা আমাদের জন্য একসময় হুমকিও হতে পারে। কিছু বলা সম্ভব নয় । যাইহোক এখন আমরা সখ করে অনেকেই বাটন মোবাইলের অ্যান্ড্রয়েড গুলো চালাচ্ছি। এই কারণে আজকের পোস্টে আমরা এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল এর দাম সম্পর্কে আপনাদেরকে বিস্তারিত বলব।

এই পোস্টে আপনাদের সামনে এমন কিছু এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল আপনাদের সামনে নিয়ে আসব যেটা বর্তমানে অনেক জনপ্রিয় এবং প্রচুর মানুষ এগুলো ব্যবহার করছে।

এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল

যে সমস্ত বাটন মোবাইলে android অপারেটিং system থাকে সেগুলোর দাম একটু বেশি হয়। এর কারণ হচ্ছে একটি বাটন মোবাইলে অনেক বেশি পারফরম্যান্স প্রদান করার পরে সেখানে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করতে হয়।

এছাড়াও আরো বিভিন্ন কারণে এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল গুলোর দাম তুলনামূলকভাবে সামান্য বেশি হয়। তবে আমরা অনেক ধরনের এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল রিচার্জ করার পরে যে মোবাইলের দাম কিছুটা কম মনে হয়েছে সেগুলোই আপনাদের সামনে তুলে ধরব।

1. Geo T19 Android Button Phone

প্রশ্নের শুরুতে আমরা জিও কোম্পানির একটি এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল আপনাদের সামনে নিয়ে এসেছি। এই মোবাইলের ডিটেলস গুলো দেখে আমার কাছে বেশ ভাল মনে হয়েছে তাই প্রথমে এই মোবাইলটিকে পোষ্টের মধ্যে রাখা হয়েছে।এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল

তবে মোবাইল গুলো কেনার আগে আপনি অবশ্যই ডিটেলস গুলো ভালোমতো দেখে নিবেন তারপরে এগুলো চয়েস করবেন।

✓ জিও কোম্পানির এই অ্যান্ড্রয়েড বাটন মোবাইলের দাম ২৮৯৯ টাকা বা ২৯০০ টাকা। তো বন্ধুরা আপনার কাছে যদি এই বাটন মোবাইল গুলো কেনার জন্য বাজেট ২৯০০ থেকে ৩০০০ টাকার মত হয়ে থাকে তাহলে আপনি মোবাইলটি নিতে পারেন।

✓ মোবাইলটিতে আপনারা 4 জি নেটওয়ার্ক কানেকশনে ইন্টারনেট চালাতে পারবেন । এছাড়াও কথা বলার সময় এখানে volte এনেবল করা যাবে। যার কারণে অফলাইনে অডিও কলের সাউন্ড ও ভালো ক্লিয়ার আসবে।

✓ এই মোবাইলে আপনি দুইটি সিম কার্ড এর সাথে আরেকটি এসডি কার্ড ও সুন্দরভাবে ব্যবহার করতে পারবেন।

✓ এই মোবাইলের মধ্যে যে রেমটি ব্যবহার করা হয়েছে সেটার সাইজ হচ্ছে ৫১২এম্বি এবং ফোন মেমোরিতে অ্যাপগুলো ইনস্টল হওয়ার জন্য 4 জিবি একটি সুন্দর স্টোরেজ দেওয়া হয়েছে।

✓ সিপিইউ সেকশনে Cortex©-A53 মডেলের টি এবং দেওয়া হয়েছে যার কারণে মোবাইল টি ব্যবহার করার সময় আপনি বেশ ভালো এক্সপেরিয়েন্স পাবেন।

✓ এই মোবাইলে ওয়াইফাই ব্লুটুথ সহ এই ধরনের প্রয়োজনীয় যাবতীয় কানেক্টিভিটি গুলো রয়েছে ।

✓ মোবাইলটির সামনে এবং পিছনে দুইটি ক্যামেরা রয়েছে আর এই দুইটি ক্যামেরা তেই ব্যবহার করা হয়েছে ২ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা সেন্সর।

✓ এখানে আপনি পাবেন দুই হাজার মিলি এম্পিয়ার ভালো ব্যাটারি । আর এই ব্যাটারিটি মোবাইলের সাথে একদম এটাস্ট থাকবে না যার কারণে পরবর্তীতে এটি খুলতে পারবেন ।

✓ মোবাইলের সাথে আপনারা ২.৮ ইঞ্চি এর একটি চমৎকার ডিসপ্লে পাবেন এবং এই মোবাইলের ওজন হচ্ছে ১০৫ গ্রাম।

উপরের বিষয়গুলো ভালোমতো পড়বেন এবং দেখবেন আপনার পছন্দ হয় কিনা তারপর আপনি এই মোবাইলটি সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জেনে ক্রয় করবেন। তবে হ্যাঁ আশা করি অন্যান্য অ্যান্ড্রয়েড বাটন মোবাইল এর থেকে এটি একটু ভালো হবে।

2. Energizer E241S Dual SIM (kiaos)

আমরা পোস্টের দুই নম্বরে কাইওএস এর আরেকটি অ্যান্ড্রয়েড বাটন মোবাইল নিয়ে এসেছি। তবে এই মোবাইল টি কেনার ক্ষেত্রে আপনাদের প্রয়োজন পড়বে আরেকটু বেশি পরিমাণে টাকা।

এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল

যেহেতু এই মোবাইলের বাজেট একটু বেশি তাই আগেরটা থেকে এর পারফরম্যান্স ও তুলনামূলক ভাবে বেশ ভালো পাওয়া সম্ভব।  এই মোবাইলটির দাম অনলাইনে লেখা আছে ৩৪৯৯ টাকা অর্থাৎ আপনার মোবাইল কেনার ক্ষেত্রে বাজেট ৩৫০০ টাকার আশেপাশে হয়ে থাকে তবেই আপনি এই মোবাইলটি নেওয়ার চিন্তাভাবনা করে দেখতে পারেন।

✓ মোবাইলটি ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশের সর্ব প্রথম লঞ্চ হয় আর এটাতে ২.৪ ইঞ্চি এর একটি ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে ।

✓ মোবাইলের ওজন হবে মাত্র ৯৫ গ্রাম যার কারণে এটি কোথাও নেওয়া এবং ব্যবহার করা খুব সহজ হবে ।

✓ এই মোবাইল ফোনে সামনে ০.৩ মেগাপিক্স পিছনে আরেকটি ০.৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা দেওয়া হয়েছে। আর হ্যাঁ পিছনের ক্যামেরা এর সাথে একটি ভালো ফ্লাশ লাইট যুক্ত করা আছে।

✓ মোবাইলটি যাতে ভালোভাবে চালানো যায় সেজন্য এটায় রেম সেকশনে ৫১২এমবি এবং ইন্টার্নাল মেমোরিতেও ৫১২ এমবি স্টোরেজ দেওয়া হয়েছে।

✓ যেহেতু এই মোবাইল ফোনে 1900 মিলি এম্পিয়ার এর একটি লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি দেওয়া আছে তাই এটির ব্যাটারি ব্যাকআপও ভালো পাওয়া যাবে।

✓ এছাড়াও এটায় চার্জ দেওয়ার জন্য ইউএসবি ২.০ জ্যাক এর পাশাপাশি ৩.৫ মিলি মিটার এর হেডফোন জ্যাক ও আছে।

✓ তবে এই মোবাইল ফোনটির অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে কাই ও এস এর নিজস্ব অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করা আছে।

উপরে দেওয়া আছে মোবাইলটার যাবত ইনফরমেশন। তবে এই মোবাইলের দাম হিসেবে মোবাইলটির এক্সেসরিজ গুলো  আমার কাছে বেশি পছন্দ হয়নি।

যদি আপনার কাছে পছন্দ হয় এবং আপনার বাজেট ৩৫০০ টাকার মধ্যে হয়ে থাকে তাহলে আপনি চাইলে এই মোবাইলটি নিয়ে নিতে পারেন।

3. Nokia 105 4G

nokia mobile  সম্পর্কে নতুন করে আশা করি আর কিছু বলতে হবে না। কারণ যখন বাংলাদেশের সর্বপ্রথম মোবাইল আসে তখন থেকেই নকিয়া কোম্পানি দাপটের সাথে তাদের মোবাইল মার্কেটে ছেড়ে আসছে।

এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল

তবে ইদানিং এসে নোকিয়া কোম্পানি কিছুটা ডুবে যেতে চলেছে। কিন্তু এই কোম্পানি থেকে যে সকল মোবাইল লঞ্চ করা হয় সেগুলোর প্রত্যেকটা প্রোডাক্ট এর মান অনেক বেশি উন্নত থাকে।

ঠিক এর ধারাবাহিকতায় নোকিয়া কোম্পানি থেকেও এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল লঞ্চ করা হয়েছে। সেগুলোর মধ্য থেকে এখনো আমরা nokia 105 4g মোবাইল সম্পর্কে বিস্তারিত।

✓ nokia কোম্পানির এই অ্যান্ড্রয়েড বাটন মোবাইল এর দাম হবে ৩৯৯৯ টাকা । অর্থাৎ যে সকল ক্রেতাদের মোবাইল কেনার ক্ষেত্রে বাজেট ৪০০০ টাকার মধ্যে রয়েছে তারা এই মোবাইলটি দেখতে পারেন।

✓ মোবাইলটির ব্যাটারি ব্যাকআপ ভালো পাওয়ার জন্য এখানে ১০২০ মিলি অ্যাম্পিয়ার এর লিথিয়াম আয়নের ব্যাটারি লাগানো আছে ।

✓ কিন্তু একটি খারাপ দিক হচ্ছে এই মোবাইলে কোন ধরনের ক্যামেরা ব্যবহার করা নেই। তবে এর ডিসপ্লে সাইজ হচ্ছে ১.৮ ইঞ্চি।

✓ এই নোকিয়া মোবাইলটি ২০২১ সালের জুন মাসে বাংলাদেশের সর্বপ্রথম লঞ্চ হয়েছিল। আর এই মোবাইলটি দিয়ে খুব সহজেই ফোরজি নেটওয়ার্ক কানেকশন এর মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করা যাবে।

✓ মোবাইলটির ওজন যেহেতু মাত্র ৮২ গ্রাম তাই এটি ব্যবহার করা এবং এটি নিয়ে চলাফেরা করে অনেক বেশি সহজ হবে।

✓ এই মোবাইল এর মধ্যে ৪৮ এমবি এর ইন্টার্নাল মেমোরি দেওয়া আছে এবং ১২৪ এমবি স্টোরেজ এর র‍্যাম ও ইনক্লুড করা আছে।

✓ এই অ্যান্ড্রয়েড বাটন মোবাইলে ব্লুটুথ ওয়াইফাই বা লোকেশন ট্র্যাক করার মতো কোনো ধরনের কানেক্টিভিটি দেওয়া হয়নি।

✓ মোবাইলটি আপনারা মোট তিনটি রঙ্গের পাবেন  নীল লাল এবং কালো রঙের।

✓ আর হ্যাঁ নোকিয়া কোম্পানির এই এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইলটিতে আপনারা দুইটি সিম কার্ডের পাশাপাশি একটি মেমোরি কার্ড ও ব্যবহার করার সুযোগ-সুবিধা পেয়ে যাবেন ।

উপরের বর্ননা গুলো পরে যারা এই নোকিয়া কোম্পানির বাটন মোবাইলটি নিতে ইচ্ছুক তারা অনলাইন থেকে কিংবা নোকেয়া কোম্পানির যেকোন শোরুম থেকে মোবাইলটি সংগ্রহ করতে পারবেন।

আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ কথা হচ্ছে নোকেয়া কোম্পানির মোবাইল গুলোর দাম বরাবরই বেশ কিছুটা বেশি হয়ে থাকে । এর প্রধান কারণ হচ্ছে তারা বেশি দাম নিয়ে ভালো মানের প্রোডাক্ট গুলো সার্ভিস দিয়ে থাকে।

৪. Xiaomi Qin 1s 4G

এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল

শাওমি কোম্পানী সম্পর্কেও আশা করি আপনাদেরকে নতুন করে কিছু বলতে হবে না। কারণ ইদানিং এই কোম্পানি এমন কিছু স্মার্টফোন বাজারে নিয়ে এসেছে যেটা ক্রেতাদেরকে একদম অবাক করে দিয়েছে।

কোম্পানিটি সব সময় চেষ্টা করেছে কমফোর্টেবল প্রাইজে প্রোডাক্টগুলো কাস্টমারদের হাতে পৌঁছে দিতে । আর এর কারণেই তারা সব সময় চেষ্টা করেছেন মিড রেঞ্জের বাজেটের স্মার্টফোনগুলো বানানোর।

তো তারা যেহেতু এন্ড্রয়েড মোবাইল বানাতে বেশ এক্সপার্ট তাই তারা অ্যান্ড্রয়েড বাটন মোবাইলও কয়েকটি বানিয়েছে । আর তার মধ্যে একটি হচ্ছে Xiaomi Qin 1s .  এই মোবাইলটির পারফরম্যান্স এবং বাকি জিনিসগুলো সবগুলো বেশ চমৎকার।

✓ বাংলাদেশের এই মোবাইলটির দাম রাখা হয়েছে মাত্র ২৭৯০ টাকা। তো আপনারা যারা এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল খুজতেছিলেন এবং ভালো কোম্পানির মোবাইল নিতে ইচ্ছুক তারা চাইলে ২৭৯০ টাকা বা ২৮০০ টাকা দিয়ে এই মোবাইলটি নিয়ে নিতে পারেন।

✓ শাওমি কোম্পানির এই বাটন মোবাইলটিতে ২৫৬ এমবি এর রেম এবং ৫১২ মেগাবাইট এর ইন্টারনাল মেমোরি হিসেবে স্টোরেজ দেওয়া হয়েছে।

✓ Xiaomi Qin 1s  মডেলের এই মোবাইল ফোনের বডি অনেক স্লিম এবং এটা দেখতেও অনেক চমৎকার। যেকোনো কাস্টমার এই মোবাইলটিকে পছন্দ করতে বাধ্য।

✓ মোবাইলটির ব্যবহারকারী যদি চায় তাহলে সে একসাথে দুইটি সিম কার্ড এবং আলাদা আরেকটি মেমোরি কার্ড এতে ঢুকিয়ে দিতে পারবে।

✓ এটি দিয়ে এন্ড্রয়েড ফোনের যাবতীয় কাজ করা সহ 4g কানেকশনে ইন্টারনেট ইউজ করতে পারবেন এবং সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলার জন্য volt E  ও আছে ।

✓ এই মোবাইলে ২.৮ ইঞ্চি এর চমৎকার আইপিএস ডিসপ্লে দেওয়া আছে। এতে আইপিএস টেকনোলজি ব্যবহার করার কারণ হচ্ছে যাতে করে এতে ব্যবহারকারীর জন্য ডিসপ্লে দেখা অনেক কমফোর্টেবল হয়।

✓ আরো চমৎকার ব্যাপার হচ্ছে মোবাইলটির ডিসপ্লে কে প্রটেক্ট করার জন্য এটাতে কর্নিং গরিলা গ্লাস এর প্রটেক্টর দেওয়া আছে।

✓ উক্ত অ্যান্ড্রয়েড বাটন মোবাইল এ যে প্রসেসর দেওয়া আছে সেই প্রসেসরের টাইপ হচ্ছে ৬৪ বিট ডুয়েল কোর প্রসেসর।

✓ তবে এই মোবাইলে কোন ধরনের ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়নি এই কারণে আপনারা কোন ছবি বা ভিডিও করতে পারবেন না এছাড়া মোবাইলে কোন ফ্ল্যাশ লাইট ও দেওয়া হয়নি।

✓ xiaomi কোম্পানির এই এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল এ যে ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে সেটার মিলিয এম্পিয়ার হচ্ছে ১৪৮০। আর এই ব্যাটারিটি বানানো হয়েছে লিথিয়াম পলিমার দিয়ে এবং এটি মোবাইলের সাথে একদম এডজাস্ট করা আছে।

✓ এই মোবাইলে ব্লুটুথ ওয়াইফাই এবং জিপিএস সহ এই ধরনের যে সকল কানেক্টিভিটি একটি এন্ড্রয়েড মোবাইলে থাকা প্রয়োজন সবকিছুই এই মোবাইলে আছে।

✓ ক্যামেরা না থাকার কারণে মোবাইল থেকে ভিডিও বা ফটো না তোলা গেলেও এই মোবাইলের মধ্যে আপনারা ভিডিও এবং অডিও ফাইল গুলো খুব সুন্দর ভাবে চালাতে পারবেন।

বন্ধুরা উপরে আমরা শাওমি কোম্পানির এই এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইলটিতে কি কি ফিচারস রয়েছে সবকিছু আপনাদেরকে সহজ ভাষায় বুঝিয়ে দিয়েছে। এরপরও যদি এই মোবাইল সম্পর্কে আপনাদের মনে কোন প্রশ্ন থাকে সেটা অবশ্যই কমেন্ট বক্সে জানাবেন।

মোবাইলটির দামও উপরে খুব সুন্দর ভাবে বলা হয়েছে তাই এই বাজেটের মধ্যে যদি আপনার টাকা থাকে তাহলে এটি নিতে পারেন।

পরিশেষে

আজকের পোস্টে আমার মোট চারটি এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল সম্পর্কে বিস্তারিত আপনাদেরকে বলেছি। এই বাটন মোবাইল গুলোর দাম কেমন এবং মোবাইলে কি কি ফিচারস পাবেন সেগুলো সম্পর্কে আপনাদেরকে ধারণা দেওয়া হয়েছে।

তবে আমি আপনাদেরকে যে চারটি মোবাইল সম্পর্কে বিস্তারিত বলেছি এর মধ্যে সর্বপ্রথম জিও কোম্পানির যে অ্যান্ড্রয়েড বাটন মোবাইলটি আছে সেটি আমার কাছে সবথেকে ভালো লেগেছে।

তো ওই মোবাইলটি আমি সাজেস্ট করব আপনি নেন। কারণ মোবাইলটির রেম এবং প্রসেসর বেশ ভালো রয়েছে এছাড়া অন্য মোবাইল গুলোর থেকে ওই মোবাইলের দাম তুলনামূলক অনেক কম।

আশা করি পোস্টে দেখানো মোবাইল গুলো আপনার পছন্দ করেছেন। তো এই এন্ড্রয়েড বাটন মোবাইল গুলো সম্পর্কে যদি আর কোন প্রশ্ন আপনার মনে থাকে তাহলে সেটা অবশ্যই কমেন্ট বক্সে আমাদেরকে জিজ্ঞেস করবেন।

ভালো লাগতে পারে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button