" " " "

itel l6502 দাম কত – itel l6502 price in bangladesh 2023

আসসালামু আলাইকুম আপনি কি এই itel l6502 দাম কত জানতে চান? তাহলে আজকের পোস্ট অবশ্যই শেষ পর্যন্ত পড়তে হবে। আজকের উদাহরণ ডটকম এর পোস্টে আপনি এই itel l6502 price in bangladesh খুব ভালো মতো জেনে নিতে পারেন।

বর্তমানে বাংলাদেশে অনেক ধরনের কোম্পানি আছে যারা অ্যান্ড্রয়েড ফোন লঞ্চ করে থাকে। কিন্তু এদের মধ্যে ইদানিং আইটেল অনেক জনপ্রিয় একটি ব্র্যান্ড হয়ে উঠেছে। এর প্রধান কারণ হচ্ছে তারা কম দামে বেশ ভালো ভালো এন্ড্রয়েড ফোন মার্কেটে লঞ্চ করতে পারছে ।

তো এই কারণে এখন অনেক মানুষ আছে যারা google এ এই l6502 দাম কত লিখে খোঁজাখুঁজি করে থাকে । তাদের জন্যই আমাদের আজকের এই পোস্ট সাজানো হয়েছে।

তাহলে বন্ধুরা চলুন আমরা এই আইটেল কোম্পানির মোবাইলটি সম্পর্কে আপনাদেরকে বিস্তারিত বুঝিয়ে আসি । কাদের জন্য এই মোবাইল কেনা ভালো হবে এবং কাদের জন্য ভালো হবে না সেটাও ভালোমতো বুঝিয়ে আসি।

itel l6502 model name

অনেকেই আছে যারা itel l6502 model name লিখে গুগলে সার্চ করে থাকে।  যারা এটা লিখে গুগলে সার্চ করে থাকে তারা হয়তো এই মোবাইলের নাম ভালো মতো জানো না।

যারা itel l6502 model name জানেন না তাদের জন্য বলি এই মোবাইলটি আইটেল কোম্পানির একটি জনপ্রিয় মোবাইল। আর এই মোবাইলের অরজিনাল নাম হচ্ছে আই itel ভিশন 1 pro. এখন আমরা এই মোবাইলেরই বিস্তারিত আপনাদের সাথে আলোচনা করব ।

itel l6502 দাম কত ও বিস্তারিত

ইদানিং আমরা দেখতেছি আইটেল কোম্পানি অনেক কম দামে ভালো ভালো অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল মার্কেটে লঞ্চ করে আসতেছে। এই ভালো ভালো মোবাইল গুলোর মধ্যে আইটেল  ভীষণ ওয়ান প্রো একটি ভালো মোবাইল।

আপনি হয়তো কোন লোকজনের মুখ থেকে এই নামটা শুনেছেন তাই গুগলে এসে itel l6502 দাম কত লিখে সার্চ করেছেন। আর আপনি যেহেতু আজকে আমাদের পোস্টে চলে এসেছেন তাই আপনি অবশ্যই একটি সঠিক পোস্টে চলে এসেছেন।

সাধারণ তথ্য

itel কোম্পানির এই মোবাইল ফোনটি ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসে বাংলাদেশে সর্ব প্রথম লঞ্চ করা হয়েছিল। আর এই মোবাইল এর রং বেশ চমৎকার এবং দেখতে অনেক আকর্ষণীয় ।

ফোনটি মোট ২ টি কালারের পাওয়া যাবে Ice Crystal Blue এবং Cosmic Shine.

itel l6502 বডি সম্পর্কে তথ্য

এই ফোনের সামনের অংশ বানানো হয়েছে গ্লাস দিয়ে এবং ফুল বডি বানানো হয়েছে প্লাস্টিকের সাহায্যে। মোবাইলটি অনেক পাতলা অর্থাৎ এর থিকনেস হচ্ছে মাত্র ৮.৫ মিলিমিটার ।

আর এর ওপরে যেহেতু মিনিমাল নচ দেওয়া হয়েছে তাই মোবাইলটি দেখতে অনেক সুন্দর দেখা যায়। আর এই মোবাইলের ওজন সম্পর্কে অনলাইনে কোন ধরনের তথ্য পাওয়া যায়নি তবে মোবাইলটি বেশ হালকা এটা বোঝা যায়।

ক্যামেরা সম্পর্কে বিস্তারিত

এখন ফটোগ্রাফি করা আমাদের প্রত্যেকেরই প্রায় একটা নেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর এই ফটোগ্রাফির জন্য অবশ্যই ভালো ক্যামেরা দরকার যেটা দিয়ে ভালো পরিষ্কার ছবি তোলা যাবে।

তো তাদের জন্য আইটেম কোম্পানি এখানে বেশ ভালো কাজ করেছে তারা মোবাইলটিতে অনেক ভালো ক্যামেরা ব্যবহার করেছে। চলুন ক্যামেরা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই –

  • মোবাইলটির পিছনে মোট তিনটি ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে এবং তার প্রধান ক্যামেরাটি হচ্ছে ৮ মেগাপিক্সেলের । বাকি দুইটি সেন্সর এর একটি হচ্ছে এ আই সেন্সর এবং আর একটি হচ্ছে ডেপথ সেন্সর।
  • ক্যামেরাটির সাথে একটি এলইডি ফ্ল্যাশ লাইট দেওয়া হয়েছে এবং এই ক্যামেরা দিয়ে মোট 4 গুন পর্যন্ত জুম করা যাবে ।
  • চমৎকার ব্যাপার হচ্ছে পিছনের ক্যামেরা দিয়ে সর্বোচ্চ ১০৮০পি রেজুলেশন এর ভিডিও খুব সহজে রেকর্ড করা যাবে।
  • এর সামনের ক্যামেরা টিও ৮ মেগা পিক্সেল এর এবং এই সামনের ক্যামেরা দিয়ে বেশ চমৎকার ফটো তোলার পাশাপাশি ৭২০ রেজ্যুলেশন এর ভিডিও রেকর্ড করা যাবে।

মোবাইলের ক্যামেরাতে যদিও একটু কম পিক্সেল ব্যবহার করা হয়েছে কিন্তু এই কম পিক্সেলের ক্যামেরা দিয়ে অনেক ভালো ফটো তোলা সম্ভব । আশা করি আপনারা মোবাইলের ক্যামেরা সেকশন সম্পর্কে ভালো মত আইডিয়া পেয়ে গেছেন এবং এটা নিয়ে আর কোন প্রশ্ন নেই।

নেটওয়ার্ক কানেকশন সম্পর্কে তথ্য

বর্তমান হচ্ছে ইন্টারনেটের যুগ এবং এই ইন্টারনেটের যুগে মোবাইলের নেটওয়ার্ক কানেকশন মজবুত থাকা অনেক জরুরী । এর প্রধান কারণ হচ্ছে যদি আপনার মোবাইলের নেটওয়ার্ক ভালো না থাকে তাহলে আপনি ইন্টারনেট সঠিকভাবে এক্সেস করতে পারবেনা।

আর যদি আপনি ইন্টারনেট ভালোভাবে এক্সেস করতে না পারেন তাহলে ওই মোবাইল ব্যবহার করার কোন প্রশ্নই আসে না। চলো এখন আমরা এই মোবাইলটির নেটওয়ার্ক সম্পর্কে আপনাদেরকে তথ্যগুলো দিয়ে আসে :

✓ এই মোবাইলটিতে আপনারা মোট দুইটি সিম কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন। আর এই দুইটি সিম কার্ডে রয়েছে 4 জি কানেকশন। অর্থাৎ আপনি ইন্টারনেট চালালে 4জি কানেকশন এর মাধ্যমেই ইন্টারনেট চালাতে পারবেন।

এছাড়াও এই মোবাইল ফোনটিতে যেহেতু volte enable করা আছে তাই যখন আপনি মোবাইলে কারো সাথে কথা বলতে ধরবেন তখনই এখান থেকে অনেক ভালো কোয়ালিটির সাউন্ড পাবেন।

মোবাইলটির পারফরমেন্স সম্পর্কে বিস্তারিত

যদি কোন মোবাইলের পারফরমেন্স ঠিক না থাকে তাহলে মোবাইলটি চালিয়ে আপনি কোনভাবেই শান্তি পাবেন না। আর আমরা অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ব্যবহারই করি এটা থেকে ভালো পারফরম্যান্স পাওয়ার জন্য।

তো এখানে আইটেল মোবাইল বেশ ভালো কাজ করেছে তারা মোবাইলটিতে ভালো পারফরম্যান্স দিয়েছে। চলুন এই মোবাইল কেমন পারফরম্যান্স হবে সেটা নিয়ে আলোচনা করি :

✓ এই আইটেল মোবাইলটিতে android 10 গো এডিশন এর অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করা হয়েছে।

✓ আর এটাই যে চিপসেট দেওয়া হয়েছে সেটার মডেল হচ্ছে Unisoc SC9832E আর এই চিপসেট যেহেতু ২৮ ন্যানোমিটার এর তাই এটা থেকে মোটামুটি পারফরম্যান্স পাওয়া যাবে।

✓ আর এই itel l6502  মোবাইলে সিপিইউ হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে যে মডেলের সেটা হচ্ছে Quad-core এর ১.৬ গীগাহার্জ এর একটি সিপিইউ

আর এই সিপিইউটি cortex a7 দ্বারা নির্মিত ।

যদিও মোবাইলটিতে পারফরমেন্স অনেক বেশি দেওয়া হয়নি তবে মোবাইলের দাম হিসেবে এর পারফরমেন্স মোটামুটি ঠিক আছে।

এখানে যে চিপসেট এবং প্রসেসর গুলো ব্যবহার করা হয়েছে এই প্রসেসর দিয়ে আপনি মোটামুটি লো লেভেলের গেম গুলো ভালোমতো খেলতে পাবেন। যদি আপনি এই মোবাইল ব্যবহার করে অনেক বড় বড় গেম যেমন ফ্রি ফায়ার এবং pubg মতো গেম গুলো খেলতে চেষ্টা করেন তাহলে আপনার মোবাইল লেগ দিবে।

মেমোরি সেকশন

বন্ধুরা এখন android মোবাইল চালানোর জন্য অনেক ধরনের অ্যাপ্লিকেশন এর দরকার হয়। কিন্তু যদি আপনার মোবাইলে বেশি মেমোরি না থাকে তাহলে বেশি অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করতে পারবেন না।

আবার কম মেমোরি যুক্ত মোবাইলে যদি আপনারা বেশি অ্যাপ ইন্সটল দেন তাহলে সেই অ্যাপ গুলো ভালো পারফরমেন্স দিতে পারবেনা এবং আপনার মোবাইল অনেক স্লো হয়ে যাবে।

  • এই মোবাইলটিতে ফোন মেমোরিতে ৩২ জিবি স্টোরেজ দেওয়া হয়েছে। আর হ্যাঁ এখানে রেম হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে 2/3gb  ram।
  • রাম যেহেতু 3gb রয়েছে তাই এই রেম দিয়ে আপনারা অনেক ভালো ভালো অ্যাপ্লিকেশনই ব্যবহার করতে পারবেন। তবে হ্যাঁ বড় বড় অ্যাপ গুলো ইন্সটল করে মোবাইলে রাখা যাবে না।
  • এখানে আপনার মোবাইলটি দুইটি ভার্সনের পেয়ে যাবেন একটি ভার্সনের মধ্যে ২ জিবি এবং অন্য ভার্সনের মধ্যে ৩ জিবি র‍্যাম পাওয়া যাবে।
  • তবে হ্যাঁ আপনি যে ভার্সনেরই মোবাইল কিনেন না কেন এখানে প্রতিটাতেই ৩২ জিবি ইন্টার্নাল মেমোরি দেওয়া আছে।

যেহেতু মোবাইলের আলাদা আলাদা দুটি ভেরিয়েন্ট রয়েছে তাই এখানে দুইটির দামও আলাদা আলাদা। তো এই দুইটি itel l6502 দাম কত সেটা আমরা পোস্টের শেষে আপনাদের কে বলে দেবো।

itel l6502 এর ব্যাটারি

অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলে কিন্তু অনেক বেশি ব্যাটারি প্রয়োজন পড়ে কারণ এখানে অনেক বড় বড় অ্যাপ্লিকেশন রান করানো হয়। তবে এই মোবাইল গুলোর অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় হচ্ছে এখানে কি ধরনের ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে।

যদি আপনার মোবাইলে ভালো ব্যাটারি না থাকে তাহলে সেই মোবাইল ব্যবহার করে আপনি বেশি মজা পাবেন না কারণ মোবাইলটি তখন বারবার চার্জে লাগাতে হবে।

আইটেল এর এই মোবাইলটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ৪০০০ মিলি এম্পিয়ার এর একটি ব্যাটারি। আর হ্যাঁ এই ব্যাটারিটি নন রিমুভেবল অর্থাৎ মোবাইল থেকে ব্যাটারি খোলা যাবে না।

মোবাইলের সাথে যে চার্জার দেওয়া হবে সেই চার্জার দিয়ে মোবাইলে সম্পূর্ণ চার্জ করতে মোটামুটি তিন ঘন্টার মত সময় লাগবে।

যেহেতু এটাই ৪০০০ মিলি এম্পিয়ারের ব্যাটারি দেওয়া আছে তাই এই ব্যাটারি দিয়ে আপনারা ২ থেকে ৩ দিন অনায়াসে পার করে দিতে পারবেন। কিন্তু যদি গেম খেলতে থাকেন বা সারাক্ষণ ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তাহলে আরো কম যেতে পারে।

মোবাইলের ডিসপ্লে কেমন?

বেশিরভাগ মানুষ এই এন্ড্রয়েড ফোনগুলো নিয়ে থাকে সাধারণত এখানে মাল্টিমিডিয়া গুলো বেশি বেশি দেখার জন্য। কিন্তু যদি মোবাইলের ডিসপ্লে সেকশন ভালো না হয় তাহলে এখানে মাল্টিমিডিয়া দেখে আপনি ভালো এন্টারটেইন হতে পারবেন না ।

  • তো এই মোবাইলে 6.5 ইঞ্চি এর একটি চমৎকার ডিসপ্লে দেওয়া হয়েছে। আর এই ডিসপ্লের ওপর একটি টাস স্ক্রিন বসানো হয়েছে এবং ডিসপ্লে টাইপ হচ্ছে আই পি এস এলসিডি ।
  • ডিসপ্লের রেজুলেশন মোটামুটি ভালো আছে আর এর রেজুলেশন হচ্ছে 720 x 1600 পিক্সেল। এটি মাল্টি টাচ ডিসপ্লে হওয়ার পাশাপাশি এটাতে বেশ ভালো একটি গ্লাস প্রটেক্টরও দিয়ে দিয়েছে।
  • ডিসপ্লেটির সাইজ বেশ বড় রয়েছে তাই এখানে আপনারা youtube এর কিংবা অন্যান্য ভিডিও দেখে ভালই মজা পাবেন।

itel l6502 এর দাম কত?

বন্ধুরা এখন আমরা আপনাদেরকে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় itel l6502 price in bangladesh সেটা বলব।

অর্থাৎ বাংলাদেশের মধ্যে itel l6502 এর দাম কত? তো এখন আমরা সেই বিষয়টি আপনাদেরকে পরিষ্কারভাবে বুঝিয়ে দেবো।

এখানে আমাদের দেশের সরকার অনেক বেশি ট্যাক্স কেটে থাকে মোবাইল গুলোতে। এই কারণে মোবাইলের দাম বাংলাদেশে এসে অনেক বেশি হয়ে যায়।

কিন্তু বন্ধুরা যদি আবার আন অফিসিয়াল মোবাইল কিনতে চান তাহলে মোবাইল গুলোর দাম অনেক কম পড়বে। তবে আন অফিসিয়াল মোবাইল কিনলে পরবর্তীতে অনেক সমস্যা হতে পারে।

যাইহোক itel l6502 এর দাম বাংলাদেশী বাজার অনুযায়ী ৮৪৯০ টাকা । তবে এই দামে কিন্তু এর থেকে আর ভালো মোবাইল দেখা যায় না।

যদি আপনার বাজেট সাড়ে আট হাজার টাকা হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনার এই মোবাইলটি একবার কেনার কথা চিন্তা করা উচিত। আশা করি itel l6502 এর দাম কত সেটা আপনারা খুব ভালো মতো জেনে গেছেন।

শেষকথা

আজকের পোস্টে আমরা itel l6502 এর দাম কত এবং এই মোবাইল সম্পর্কে যাবতীয় বিস্তারিত বিষয় আপনাদের সাথে তুলে ধরেছি। এগুলোর পাশাপাশি যদি কেউ এই মোবাইল সম্পর্কে আরো কোন তথ্য জানতে চান তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জিজ্ঞেস করবেন।

আর হ্যাঁ যে সকল ব্যক্তি মোবাইল শুধুমাত্র নিত্য দিনের কাজ এবং সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করার জন্য কিনতে চায় তাদের জন্য এই মোবাইলটি একদম পারফেক্ট। এছাড়া অনেক মানুষ আছে যারা প্রতিদিন ইউটিউবে ভিডিও দেখতে পছন্দ করে তারাও চাইলে মোবাইলটা নিতে পারে।

তবে যারা গেমের জন্য মোবাইল খুজতেছেন বা মোবাইলে অনেক বড় বড় কাজ করবেন তাদের জন্য এই মোবাইলটি নেওয়া উচিত হবে না।

আশা করি এই মোবাইল সম্পর্কে আপনার মনে আর কোন প্রশ্ন নেই। চাইলে আমাদের আজকের এই মূল্যবান পোস্ট আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে তাদেরকে বিষয়টি জানার সুযোগ করে দিতে পারেন। কোনো প্রশ্ন থাকলে ফেসবুক পেইজে জানাতে পারেন।

ভালো লাগতে পারে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button