জনপ্রিয় কিছু শহরে ব্যবসার আইডিয়া জেনে নিন

আপনি কি শহরে গিয়ে ব্যবসা শুরু করতে যাচ্ছেন? এ কারণে শহরে ব্যবসার আইডিয়া খুজতেছেন । তাহলে আজকের পোস্ট সম্পূর্ণ পড়লে আপনি বেশ কিছু জনপ্রিয় শহরে ব্যবসার আইডিয়া জানতে পারবেন।

শহরে ব্যবসা শুরু করা একটি চ্যালেঞ্জিং ব্যাপার। কিন্তু আপনার এখান থেকে অনেক ভাল অভিজ্ঞতা হতে পারে। যে অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে আপনি পরবর্তীতে যেকোনো জায়গায় ব্যবসা করতে পারবেন।

এই কারনে আপনি চাইলে শহরে নিশ্চিন্তে ব্যবসা করতে পারেন। তবে ব্যবসা করার আগে অবশ্যই আমাদের আজকের পোষ্ট সম্পুর্ন পরতে হবে। আজকে শহরে ব্যবসার আইডিয়া শেয়ার করার পাশাপাশি বেশকিছু টিপস ও শেয়ার করা হবে যেগুলো আপনার অনেক কাজে লাগবে ।

শহরে  ব্যবসার আইডিয়া জানার আগে যা জানতে হবে

শহরে ব্যবসা শুরু করার সময়, আপনাকে আপনার প্রতিযোগীদের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হবে, স্থানীয় নিয়মকানুন এবং নিয়মনীতিগুলিকে বোঝার জন্য আপনাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে, এবং আপনার গ্রাহকদের চাহিদা পূরণ করতে আপনাকে প্রচুর চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।

তবে, যদি আপনি সঠিক পরিকল্পনা এবং কঠোর পরিশ্রম করেন, তাহলে আপনি শহরে একটি  বড় এবং সফল ব্যবসা শুরু করতে পারবেন। এখানে নিম্নে শহরে ব্যবসার আইডিয়ার জন্য কিছু টিপস দেওয়া হল:

✓ প্রথমে যেকোনো একটি ব্যবসা করার জন্য পরিকল্পনা তৈরি করুন। একটি ব্যবসার পরিকল্পনা করলে সেটা আপনাকে আপনার ব্যবসার লক্ষ্য এবং ব্যবসা করার কৌশলগুলিকে সমৃদ্ধ করে তুলবে। এটি আপনাকে ব্যবসায় লাভ পেতে এবং আপনার ব্যবসাকে সফলভাবে পরিচালনা করতেও সাহায্য করবে।

✓ আপনার প্রতিযোগীদের ব্যবসা নিয়ে গবেষনা করুন। আপনি যে ব্যবসাটি শুরু করতে চান সেটার মধ্যে আরো অন্য আরোও কারো ব্যবসা আছে কিনা তা ভালোভাবে দেখুন। যদি থাকে, তাহলে তাদের থেকে কীভাবে ভালো সার্ভিস প্রদান করবেন তা ভেবে দেখুন।

✓ স্থানীয় নিয়মকানুন এবং নিয়মনীতিগুলি ভালো করে বুঝে নিন। আপনি যে ব্যবসাটি শুরু করতে চান সেটা করতে আরো অন্য কোনও নিয়মকানুন বা নিয়মনীতি মেনে চলতে হবে কিনা তা দেখুন। যদি থাকে, তাহলে সেগুলি মেনে চলুন।

✓ আপনার গ্রাহকদের চাহিদা পূরণ করুন। আপনার গ্রাহকদের চাহিদা এবং প্রয়োজনীয়তাগুলি কী তা ভালোভাবে জানুন। তারপরে, আপনার পণ্য বা পরিষেবাগুলিকে তাদের চাহিদা পূরণ করার জন্য ভালোভাবে সাজিয়ে তুলুন।

✓ সৃজনশীল হন। শহরে ব্যবসা শুরু করা একটি চ্যালেঞ্জিং কাজ হতে পারে। তাই, ব্যাবসা করার জন্য সৃজনশীল হন এবং এমন একটি পণ্য বা পরিষেবা বাছাই করুন যা অন্যদের থেকে আলাদা।

✓ কঠোর পরিশ্রম করুন। শহরে ব্যবসা শুরু করা এবং সফল করতে হলে অনেক কঠোর পরিশ্রমের প্রয়োজন। তাই, যদি আপনি সফল হতে চান, তাহলে কঠোর পরিশ্রম করতে প্রস্তুত থাকুন।

উপরে যে কথাগুলো বলা হলো, এগুলো অবশ্যই যে কোন ব্যবসা শুরু করার আগে আপনাকে জানতে হবে। তাহলে আপনি ব্যবসায় ভালো কিছু বলতে পারবেন।

শহরে ব্যবসার আইডিয়া গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত

আপনারা সকলেই জানেন শহরে যেমন মানুষ বেশি তেমনি সেখানে ব্যবসার পরিমাণ ও অনেক বেশি।

অর্থাৎ আপনি যদি সেখানে গিয়ে ভালো ব্যবসা শুরু করতে না পারেন তাহলে হয়তো অন্যান্য ব্যবসায়ীদের সাথে টিকিয়ে থেকে লাভবান হতে পারবেন না।

See also  মৃত ভাইয়ের সম্পত্তি বন্টন এর হিসাব বুঝে নিন (সহজ ভাষায়)

এই কারণে শহরে ব্যবসা করার ক্ষেত্রে আপনাকে শহরে ব্যবসার আইডিয়া গুলো এমন ভাবে ভালো মতো জেনে নিতে হবে যেগুলো করলে আপনি নিশ্চিতভাবে লাভবান হয়ে যাবেন।

শহরে ব্যবসা শুরু করার জন্য এখানে কিছু জনপ্রিয় আইডিয়া দেওয়া হল:

কাপড়ের ব্যবসা

শহরের মানুষ প্রতিনিয়ত শপিং করতে অনেক বেশি পছন্দ করে থাকে। যার কারণে শহরে থাকা কাপড়ের দোকান গুলো প্রচুর পরিমাণে লাভবান হয়।

কিন্তু আপনাকে একটা বিষয় বুঝতে হবে সেটা হচ্ছে শহরের দিকে কাপড়ের বড় বড় দোকান অনেক বেশি থাকে। এই কারণে আপনি যদি কাপড়ের দোকান দিয়ে তাড়াতাড়ি লাভবান হতে চান তাহলে এখানে পারবেন না।

আপনাকে ভালো দোকান দিতে হবে বড় করে এবং নিয়মিত সেখানে ক্রেতাদেরকে ভালো সার্ভিস প্রদান করতে হবে এবং ভালো প্রোডাক্টগুলো তাদের কাছে বেচতে হবে।

এভাবে বিক্রি করতে থাকলে একসময় দেখবেন আপনি ওই এলাকার জনপ্রিয় কাপড়ের ব্যবসায়ী হয়ে উঠেছেন। তখন অনেক বেশি টাকা ইনকাম করে নিতে পারবেন।

শহরে ব্যবসার আইডিয়া গুলোর মধ্যে এই কাপড়ের ব্যবসা সবথেকে বেশি লাভজনক এবং জনপ্রিয়। তবে ক্রেতাদেরকে কোনভাবে খারাপ প্রোডাক্ট দেওয়া যাবে না। তাহলে এতে আপনার দোকানের রেপুটেশন খারাপ হয়ে যাবে এবং আপনি আর ব্যবসা ভালো মতো করতে পারবেন না।

ডে-কেয়ার সেন্টার

শহরের দিকে ডে কেয়ার সেন্টার অনেক বেশি ভালো চলে। অর্থাৎ আপনি যদি ভালভাবে একটি ডে কেয়ার সেন্টার চালু করতে পারেন তাহলে সেখান থেকে বেশ ভালো কিছু পাবেন।

শহরে ব্যবসার আইডিয়া গুলোর মধ্যে  এই ডে কেয়ার সেন্টার ও একটি ভালো আইডিয়া। যদি আপনি একটি ডে কেয়ার সেন্টার চালু করতে চান তাহলে আপনাকে যে কাজগুলো করতে হবে সেটা হচ্ছে –

আপনাকে বিভিন্ন শিশুদের দায়িত্ব নিতে হবে। অর্থাৎ একটি শিশুকে খাওয়া-দাওয়া থেকে শুরু করে তার পড়াশুনা এবং মানসিক বিকাশে যে সমস্ত সাহায্য করা দরকার সেগুলো আপনাকে করতে হবে।

এখানে শিশুদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করতে হবে যেমন শিশুদের যদি কোন স্বাস্থ্য সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে সেটাও আপনাকে দেখতে হবে।

যেহেতু শিশুদের সম্পূর্ণ দায়িত্ব আপনার ওপর তাই এখান থেকে প্রতিটা শিশুর জন্য তাদের বাবা-মায়েরা অনেক টাকা খরচ করে থাকবে।

এভাবে আপনার সেন্টার একবার জনপ্রিয় হয়ে ওঠলে সেখান থেকে আপনার কাস্টমার এর কোন অভাব হবে না । যদি বেশি জনপ্রিয় হয় তখন আপনি আরো বেশ কিছু লোক নিয়োগ দিয়ে আপনার ব্যবসাকে আরো বড় করে তুলতে পারবেন।

ফার্মেসীর দোকানে ব্যবাস

শহরে ব্যবসার আইডিয়া যতগুলো আছে তার মধ্যে সবথেকে বেশি ভালো হচ্ছে এই ফার্মেসির দোকান । কারণ প্রত্যেকটা মানুষেরাই এখন ঔষধ খেতে হয়।

আপনি চার পাশে তাকিয়ে দেখেন এমন কোন মানুষ নেই যিনি ঔষধ খান না বা তার কোন অসুখ নেই। প্রতিটা মানুষই এর ভুক্তভুগী।

তো এই কারণে যদি আপনি শহরে গিয়ে বেশ ভালোভাবে একটা বড় ফার্মেসীর দোকান দিতে পারেন তাহলে দেখবেন আপনার কাস্টমার এর অভাব হবে না।

আবার ঔষধ বিক্রির ক্ষেত্রে অনেক কমিশন ও পাওয়া সম্ভব। কারণ ঔষধ কোম্পানী গুলো এই ধরনের ব্যবসায়ীদের কে কম দামে ঔষধ প্রদান করে থাকে।

অর্থাৎ আপনি এই ব্যবসাটি থেকে কম পনি বিক্রি করে বেশি লাভবান হতে পারবেন। তবে যদি আপনি ফার্মেসীর দোকান দিতে চান তাহলে এই দোকানটি এমন জায়গায় দিতে হবে যার আশেপাশে হাসপাতাল কিংবা বড় বড় ডায়াগনস্টিক সেন্টার হয়েছে।

See also  লোহিত রক্তকণিকা শ্বেত রক্তকণিকা ও অনুচক্রিকার মধ্যে পার্থক্য দেখে নিন

যদি ঔষধের ব্যবসাটি ভালো মতো চালিয়ে যেতে পারেন তাহলে একসময় এখান থেকে বেশ ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে সক্ষম হবেন।

দোকান দিয়ে ব্যবসা করা

আপনার যদি শহরে একটি ভালো ব্যবসা করার ইচ্ছা থাকে তাহলে আপনার অবশ্যই একটি দোকান দেওয়া উচিত।  শহরের যারা দোকানদার আছে তারা এখান থেকে বেশ ভালোই অর্থ উপার্জন করে।

আপনি চাইলে এখানে যে কোন কিছুর দোকান দিতে পারেন । আপনি চাইলে মুদির দোকান দিতে পারেন বা অন্য কিছুর দোকানও দিতে পারেন।

আপনি যে দোকানেই দেন না কেন যদি এমন জায়গায় দোকান দিতে পারেন যেখানে লোকজন এর সমাবেশ বেশি হয় তাহলে খুব সহজেই আপনার এই ব্যবসাটি অনেক বড় হয়ে উঠবে।

তবে শহর এলাকায় যেহেতু দোকান অনেক বেশি থাকে তাই আপনাকে অবশ্যই গ্রাহকদের সেবা সম্পূর্ণরূপে সঠিকভাবে নিশ্চিত করতে হবে।

ফুড ট্রাক ব্যবসা

শহরে ব্যবসার আইডিয়া গুলোর মধ্যে এই ফুড ট্রাক ব্যবসা টি ভালো হতে পারে। এর কারণ হচ্ছে এই ব্যবসাটি করলে কম খরচাই বেশি লাভবান হওয়া সম্ভব।

ফুড ট্রাক এমন একটি ব্যবসা যেখানে আপনার একটি খাবারের ট্রাক থাকবে এবং আপনি এই ট্রাক ব্যবহার করে খাদ্য বিক্রি করবেন। আপনি এখানে বিভিন্ন ধরনের খাদ্য বিক্রি করতে পারবেন যেমন আইসক্রিম, ফুচকা, চকলেট, বিরিয়ানি কিংবা অন্য খাবার।

তো এই খাবারগুলো বিভিন্ন পার্কে কিংবা যেখানে বেশি লোকজন ভীর হয় সেখানে গিয়ে বিক্রি করা যাবে। খুব কম ইনভেস্টমেন্টে এই ফুড ট্রাক ব্যবসা টি শহরে গিয়ে করতে পারবেন।

 ক্যাফে বা রেস্তোরাঁর ব্যবসা

শহরের মানুষ কিন্তু খাবার খেতে খুব পছন্দ করে। তারা প্রতিনিয়ত রেস্টুরেন্টে গিয়ে ভালো ভালো উন্নতমানের খাবার গুলো টেস্ট করে থাকে।

তো এই কারণে যদি আপনি শহরে গিয়ে রেস্টুরেন্ট বা ক্যাফে এর একটি বিজনেস করা শুরু করতে পারেন তাহলে এখান থেকে বেশ ভালো একটা অ্যামাউন্ট লাভবান হওয়া সম্ভব।

তবে আপনাকে বুঝতে হবে এই রেস্টুরেন্ট এর বিজনেস এ কম্পিটিটর উটার বেশি। অর্থাৎ শহরের এলাকা গুলোতে আগে থেকেই অনেক ভালো ভালো রেস্তোরা আছে।

এই কারণে যদি আপনি এই ব্যবসা থেকে ভালো কিছু করতে চান তাহলে আগে থেকে বেশ ভালো মতো প্ল্যান করতে হবে এবং সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী আপনাকে কাজ করে যেতে হবে।

লন্ড্রি সেবার ব্যবসা

বন্ধুরা শহরে ব্যবসার আইডিয়া গুলোর মধ্যে এই লন্ড্রি সেবার ব্যবসাটি বেশ ভালো একটা আইডিয়া হতে পারে।

শহরের মানুষ কিন্তু নিজেদের কাপড় চোপড় নিজেরা ধৌত করতে পছন্দ করে না। অর্থাৎ তারা এগুলো অন্যান্য মানুষ দিয়ে করাতে ভালোবাসে।

এই কারণে যদি লন্ড্রি সেবার ব্যবসা সফলভাবে শুরু করা যায় তাহলে এখান থেকেও বেশ ভালো একটা টাকা ইনকাম করা সম্ভব।

আপনি যদি একবার লন্ড্রি সেবার ব্যবসায় জনপ্রিয় হতে পারেন তাহলে দেখবেন আপনার কাছে আর কাজের অভাব হবেনা।

তখন আপনি চাইলে নিজে থেকেই কাপড়গুলো ধুয়ে ফেলতে পারবেন অথবা নিজের আন্ডারে লোক নিয়োগ দিয়ে তাদেরকে দিয়েও কাজ করাতে পারবেন।

 ক্লিনার এর কাজ

আপনি চাইলে ক্লিনার এর কাজ করার ব্যবসাটিও চালু করতে পারেন। কারণ শহরের মানুষেরা পরিষ্কার এর জন্য অন্যান্য মানুষ দিয়েই কাজ করিয়ে নেয়।

তারা এই সমস্ত কাজ নিজে করতে একদমই পছন্দ করে না। তো আপনি যদি ক্লিনার এর ব্যবসা চালু করেন তাহলে এটা আপনাকে নিজেই করতে হবে এমন কোন কথা নয়।

আপনি চাইলে বিভিন্ন মানুষ নিয়োগ দিয়ে আপনার এই ক্লিনার এর ব্যবসাটি এগিয়ে নিতে পারবেন। ক্লিনার এর ব্যবসা শহরে গলিতে গলিতে বেশ ভালোই চলে।

See also  আকর্ষনীয় বদলি জনিত বিদায় বক্তব্য দেখে নিন

নার্সিং হোম

শহরে এমন অনেক ছেলে মেয়ে আছে যারা নিজেদের বাবা মাকে বিভিন্ন নার্সিং হোমে ভর্তি করিয়ে দিয়ে তাদের সেবা করিয়ে নেয়।

যে সকল ছেলে মেয়ে অনেক বেশি ব্যস্ত থাকে তারাই এই কাজটি বেশি করে। এখানে বিভিন্ন বয়স্ক লোকদেরকে অনেক সেবা প্রদান করা হয়।

আপনার এখানে যে সমস্ত বয়স্ক লোক আসবে তাদের স্বাস্থ্য সমস্যা সহ যাবতীয় বিষয়গুলো আপনাকে পর্যবেক্ষণ করতে হবে। এভাবে তাদের সেবা করার মাধ্যমে আপনি আপনার নার্সিং হোমকে আরো বড় করে তুলতে পারবেন ।

সৌন্দর্য সেলুন

সেলুনের ব্যবসা এখন শহরে অনেক বেশি ভালো চলতেছে। শহরের দিকে এখন একটা চুল কাটাই নেওয়া হয় ৫০০ থেকে এক হাজার টাকা। তাহলে বুঝতেই পারছেন কেমন লাভ?.

আবার যারা শহরের ছেলে আছে তারা মাসে প্রায় দুই থেকে তিনবার সেলুনে গিয়ে তাদের চুল এবং দাড়ি সাইজ করে থাকে।

যদি আপনার সুন্দর ভাবে একটা সেলুন চালু করতে পারেন এবং সেখানে ভালো মতো কাজ করতে পারেন তাহলে এই ব্যবসাটি আপনার অনেক দিন হবে এবং এখান থেকে ভালো পরিমাণের অর্থ উপার্জন করা সম্ভব।

এর হ্যাঁ বলে রাখা ভালো প্রত্যেকটা ব্যবসারই একটা সমাপ্ত আছে কিন্তু সেলুনের ব্যবসায় কোন সমাপ্ত নেই। কারণ মানুষ বেঁচে থাকতে গেলে তার চুল অবশ্যই বড় হবে এবং সেলুনে গিয়ে সেটা অবশ্যই কাটিয়ে নিয়ে আসতে হবে।

তাই যদি আপনি শহরে গিয়ে একবার সেলুনে জনপ্রিয় হতে পারেন তাহলে সেখানে আপনার সেলুনে অন্যান্য লোক নিয়োগ দিয়ে তাদেরকে দিয়েও কাজ করাতে পারবেন এবং আপনি শুধু বসে বসে টাকা পাবেন।

জিম এর বিজনেস

আমাদের দেশের ছেলেরা নিজের বডি ফিটনেস ঠিক রাখার জন্য বিভিন্ন সময় জিম করে থাকে। আর এই দিনগুলো সাধারণত শহরের ছেলেরা।

অর্থাৎ যদি আপনি জিম দিতে চান তাহলে এই জিমের ব্যবসা গ্রামে দিয়ে কোন কাজ হবে না আপনাকে অবশ্যই শহরে গিয়েই এই ব্যবসাটি শুরু করতে হবে।

শহরের প্রায় প্রত্যেকটা ছেলে চায় নিজের বডি ফিটনেস ঠিক রাখতেই এবং প্রতিনিয়ত জিমে গিয়ে জিম করতে । এই কারণে যদি আপনি শহরে ভালো করে একটা জিম দিতে পারেন তাহলে সেখান থেকে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আর হ্যাঁ অনেকে আছে যারা নিজের বডিকে সিক্স প্যাক বানাতে চায় তাদের থেকে আপনি আরো বেশি লাভবান হতে পারবেন।

আপনি যদি জিম খুলতে পারেন তাহলে সেখানে অনেক কোম্পানি এসে আপনাকে স্পনসর কবে । আবার যারা জিম করতে আসবে থেকেও আপনি টাকা নিতে পারবেন।

এগুলি কিছু শহরে ব্যবসার আইডিয়া যেগুলো অনেক জনপ্রিয় এবং লাভজনক । আপনি যে আইডিয়াটি বেছে নেন না কেন, এটা নিশ্চিত করুন যে আপনি আপনার পরিকল্পনা তৈরি করেছেন এবং একটি ব্যবসার জন্য ভালো প্লান তৈরি করেছেন।

পরিশেষে

যারা ইন্টারনেটে এই শহরে ব্যবসার আইডিয়া গুলো খুজতে ছিলেন আশা করি তারা আজকের পোষ্ট করার মাধ্যমে অনেক ভালো ভালো আইডিয়াগুলো পেয়ে গেছেন।

তো এখন এই শহরে ব্যবসার আইডিয়াগুলো পড়ার পর আপনার কোন ব্যবসাটি বেশি ভালো লাগে বা আপনি কোন ব্যবসা ভালো বোঝেন সেটাই আপনাকে বেছে নিতে হবে।

তবে মনে রাখতে হবে আপনি যে ব্যবসায় করেন না কেন সেটা অবশ্যই ভালোভাবে করতে হবে এবং কাস্টমারকে সর্বোচ্চ গুণগত ভালো মানের সার্ভিস নিশ্চিত করতে হবে।

ভালো লাগতে পারে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button